রবিবার | ১৬ জুন, ২০২৪ | ২ আষাঢ়, ১৪৩১

নাটোরে তিনটিতে নৌকা ও একটিতে স্বতন্ত্রের জয়, জামানত হারালেন ২৪ প্রার্থী

আনোয়ারা খাতুন শেফালী :
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নাটোরের ৪টি আসনে ৩২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এরমধ্যে ২৪ জন প্রার্থী জামানত হারালেন।
রোববার (৭ জানুয়ারি ২০২৪) নির্বাচনে মোট ভোটের ৮ শতাংশ ভোট না পাওয়ায় এসব প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।
৫৮ নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া):
এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ৪৯ হাজার ৩৬৯ জন। এরমধ্যে প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৭০ হাজার ২৪৯টি। বাতিল ভোট ৫ হাজার ৪০৭টি। মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৬৪ হাজার ৮৪২টি। প্রদত্ত ভোটের শতকরা হার ৪৮ দশমিক ৭৩ ভাগ।
এ আসনে ১ হাজার ৯৯৬ ভোটের ব্যবধানে নৌকা ডুবিয়ে ঈগল জয় লাভ করেছে। সাবেক সংসদ সদস্য, স্বতন্ত্র প্রার্থী নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ (ঈগল) ৭৭ হাজার ৯৪৩ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় বারের মতো বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বর্তমান সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শহিদুল ইসলাম বকুল (নৌকা) ৭৫ হাজর ৯৪৭ ভোট।
জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া ৭ জন হলেন, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও নাটোর জেলা শাখার সভাপতি, উত্তরবঙ্গ আখচাষী সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ ইব্রাহীম খলিল (হাতুড়ি) পেয়েছেন ৩ হাজার ৪৩০ ভোট; আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মো. রমজান আলী সরকার (কাঁচি) পেয়েছেন ২ হাজার ৬১৪ ভোট; জাতীয় পার্টির ব্যারিস্টার মো. আশিক হোসেন (লাঙ্গল) পেয়েছেন ২ হাজার ৩৬ ভোট; আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক কাজল রায় (ঢেঁকি) পেয়েছেন ১ হাজার ১৩৬ ভোট; জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের (ইনু) ইঞ্জিনিয়ার মো. মোয়াজ্জেম হোসেন (মশাল) পেয়েছেন ৮১৭ ভোট; জাসদ স্বতন্ত্র মো. জামাল উদ্দিন ফারুক (ট্রাক) পেয়েছেন ৪৬৮ ভোট এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির (বিএসপি) মো. লিয়াকত আলী (একতারা) পেয়েছেন ৪৫১ ভোট।
৫৯ নাটোর-২ (নাটোর সদর-নলডাঙ্গা):
এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪৯ জন। এরমধ্যে প্রদত্ত ভোট ১ লাখ ৮৭ হাজার ৪১টি, বাতিল ভোট ৫ হাজার ৩২১টি। মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৮১ হাজার ৭২০টি। প্রদত্ত ভোটের শতকরা হার ৪৮ দশমিক ৭০ ভাগ।
আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী দশম (২০১৪) ও একাদশ (২০১৮) সালে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম শিমুল (নৌকা) ১ লাখ ১৬ হাজার ৪৩২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি, সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. আহাদ আলী সরকার (ট্রাক) পেয়েছেন ৬১ হাজার ১৫৪ ভোট।
জামানত বাজেয়াপ্ত ৩ জন প্রার্থী হলেন, নাটোর জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি মো. নুরন্নবী মৃধা (লাঙ্গল) পেয়েছে ২ হাজার ৭১৫ ভোট; বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির মোহাম্মদ বজলুর রশিদ (ডাব) পেয়েছেন ৮৩৯ ভোট এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) মো. শরিফুল ইসলাম (মশাল) পেয়েছেন ৫৮০ ভোট।
৬০ নাটোর-৩ (সিংড়া):
এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮ হাজার ৭৯৪ জন। এরমধ্যে প্রদত্ত ভোট ১ লাখ ৮৪ হাজার ৭০৫টি, বাতিল ভোট ৩ হাজার ৯৫টি। মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৮১ হাজার ৬১০টি। প্রদত্ত ভোটের শতকরা হার ৫৯ দশমিক ৮১ ভাগ।
আওয়ামী লীগ মনোনীত বিগত ৩ বারের (১৫ বছর) নির্বাচিত বর্তমান সংসদ সদস্য, নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এ্যাড. জুনাইদ আহমদে পলক (নৌকা) ১ লাখ ৩৫ হাজার ৬৮৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সিংড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম শফিক (ঈগল) পেয়েছেন ৪৩ হাজার ৬৫৯ ভোট।
জামানত বাজেয়াপ্ত প্রার্থী ৭ জন হলেন, জাতীয় পার্টির মো. আনিছুর রহমান (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৭৭৯ ভোট; বিকল্পধারা বাংলাদেশের মো. আনোয়ার হোসেন (কুলা) পেয়েছেন ২৩০ ভোট; তৃণমূল বিএনপির মো. আবুল কালাম আজাদ (সোনালী আঁশ) পেয়েছেন ২১৯ ভোট; স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন (ট্রাক) পেয়েছেন ১২৪ ভোট; বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আমিরুল ইসলাম (ডাব) পেয়েছেন ২০৮ ভোট; তরিকত ফেডারেশনের (বিটিএফ) মো. আলতাফ হোসেন (ফুলের মালা) পেয়েছেন ৬৫ ভোট এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির মো. মিজানুর রহমান মিজান (হাতুরি) পেয়েছেন ৬৩৮ ভোট।
৬১ নাটোর-৪ (বড়াইগ্রাম-গুরুদাসপুর):
এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ২০ হাজার ৪৭০ জন। এরমধ্যে প্রদত্ত ভোট ২ লাখ ১৩ হাজার ২৭৩টি, বাতিল ভোট ৩ হাজার ৯১৩টি। মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ৯ হাজার ৩৬০টি। প্রদত্ত ভোটের শতকরা হার ৫০ দশমিক ৭২ ভাগ।
আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী (নৌকা) ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৮২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রয়াত সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ আব্দুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভন (ট্রাক) পেয়েছেন ৯০ হাজার ৭৪৮ ভোট।
জামানত বাজেয়াপ্ত ৭ জন প্রার্থী হলেন, জাতীয় পার্টির মো. আলাউদ্দিন মৃধা (লাঙ্গল) পেয়েছেন ২৮৬ ভোট; তৃণমূল বিএনপির মো. আব্দুল খালেক সরকার (সোনালী আঁশ) পেয়েছেন ৭২ ভোট; জাতীয় পার্টির-জেপি এস এম সেলিম রেজা (বাইসাইকেল) পেয়েছেন ২৫৩ ভোট; বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের (বিএনএম) গাজী আবু সায়েম রতন (নোঙ্গর) পেয়েছেন ১৪০ ভোট; বাংলাদেশ কংগ্রেসের শান্তি রিবারু (ডাব) পেয়েছেন ২৭৩ ভোট; আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাহিদুল ইসলাম (ঈগল) পেয়েছেন ১ হাজার ২৯১ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সুজন আহমেদ (দোলনা) পেয়েছেন ২ হাজার ৭১৫ ভোট।

স্বত্ব: নিবন্ধনকৃত @ প্রাপ্তিপ্রসঙ্গ.কম (২০১৬-২০২৩)
Developed by- .::SHUMANBD::.