রবিবার | ১৬ জুন, ২০২৪ | ২ আষাঢ়, ১৪৩১

ভূমিহীন ও গৃহহীনকে জমি ও ঘর হস্তান্তর উপলক্ষে প্রেসব্রিফিং

নাটোর প্রতিনিধি :
নাটোরের লালপুর উপজেলার আশ্রয়ণ প্রকল্পে বিদ্যমান জরাজীর্ণ সিআইসিটি ব্যারাকে বসবাসরত ১৪৯টি ভূমিহীন পরিবার ৫ম পর্যায়ের (২য় ধাপ) জমিসহ দুই কক্ষ বিশিষ্ট একক সেমিপাকা নতুন ঘর প্রদান উপলক্ষে প্রেসব্রিফিং করা হয়েছে।
রোববার (৯ জুন ২০২৪) উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে এই প্রেসব্রিফিং করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শারমিন আখতার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সহকারী কমিশনার (ভুমি) শিমুল আক্তার, উপজেলা সহকারী প্রোগ্রামার মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ।
ইউএনও শারমিন আখতার লিখিত বক্তব্যে বলেন, মুজিবশতবর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক দেশব্যাপি ভূমিহীন ও গৃহহীন (ক শ্রেণির) পরিবার পুনর্বাসনের লক্ষে ২০১৯ সাল থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার; ভূমিহীন ও গৃহহীনকে জমি ও ঘর হস্তান্তর’ আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের ভূমিসহ ঘর দেওয়ার কর্মসূচিতে এবার আরও ৯ হাজার ৪৮৯টি ঘর দেওয়া হচ্ছে। আগামী মঙ্গলবার (১১ জুন ২০২৪) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এসব ঘর হস্তান্তর করবেন।
লালপুর উপজেলায় প্রায় ৩ কোটি টাকা মূল্যের ১১.৫ একর খাস জমি উদ্ধার করে প্রতিটি পরিবারকে দুই শতক জমির মালিকানাসহ সেমিপাকা ঘর; সাথে বিদ্যুৎ সংযোগসহ পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। চার ধাপে লালপুর উপজেলায় সর্বমোট ৩৮৯টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে (১ম ধাপে-৪২টি, ২য় ধাপে-৫০টি, ৩য় ধাপে-১৪২টি এবং ৪র্থ ধাপে-১৫৫টি)।
পুরাতন প্রকল্পের জরাজীর্ণ ব্যারাকের স্থলে একক সেমিপাকা গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ১নং লালপুর ইউনিয়নের বালিতিতা গ্রামে অবস্থিত পুরাতন ব্যারাকে ২৬টি পরিবার, চকশেরপাড়া গ্রামে অবস্থিত ব্যাকে ১৭টি পরিবার, ৩নং চংধুপইল ইউনিয়নের চংধুপইল গ্রামে পুরাতন ব্যারাকে ৪০টি পরিবার, ৪নং আড়বাব ইউনিয়নের অর্জুনপাড়া গ্রামে পুরাতন ব্যারাকে ২৪টি পরিবার, ৬নং দুয়ারিয়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে পুরাতন ব্যারাকে ২৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার এবং ১০নং কদিমচিলান ইউনিয়নের পানঘাটা গ্রামে পুরাতন ব্যারাকে ১৪টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসনের জন্য একক গৃহ নির্মাণ করা হয়েছে।
যা এবার নির্বাচিত উপকারভোগীদের মাঝে হস্তান্তর করা হবে। আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় পুরাতন জরাজীর্ণ সিআইসিট ব্যারাকের স্থলে ১৪৯টি পরিবারকে পুনর্বাসনের মাধ্যমে লালপুর উপজেলায় একক সেমিপাকা গৃহ প্রাপ্ত মোট পরিবারের সংখ্যা হবে ৫৩৮টি।
এছাড়া পদ্মার চরের রসুলপুর মৌজার ৯ দশমিক ৫০ একর খাস জমিতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্মিত রসুলপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পে ৪৮টি ব্যারাকে ২৪০টিসহ উপজেলায় ৬২৯টি ভূমিহীন পরিবারের আসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য ঘর প্রদান প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৪০টি ‘বীর নিবাস’ নির্মাণ ও গুচ্ছগ্রাম আশ্রয়ন প্রকল্পে আবাসনের ব্যবস্থা রয়েছে।

স্বত্ব: নিবন্ধনকৃত @ প্রাপ্তিপ্রসঙ্গ.কম (২০১৬-২০২৩)
Developed by- .::SHUMANBD::.