বৃহস্পতিবার | ২০ জুন, ২০২৪ | ৬ আষাঢ়, ১৪৩১

রূপপুরে ইউরেনিয়াম আসছে শুক্রবার

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি
পাবনার ঈশ্বরদীর রূপপুরে নির্মাণাধীন পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের প্রথম ইউনিটের ‘ফ্রেশ নিউক্লিয়ার ফুয়েল’ বা ইউরেনিয়ামের প্রথম চালান ঢাকা থেকে প্রকল্প এলাকায় নেওয়া হবে।
শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩) বিশেষ নিরাপত্তা বলয়ে সড়ক পথে এই ইউরেনিয়াম আসবে। ফলে সড়কে সম্ভাব্য যানজট এড়াতে শুক্রবার ভোর ৫টা থেকে পাবনা-ঢাকা বাস চলাচল বন্ধ থাকবে।
পাবনার পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, পাবনা-ঢাকা মহাসড়কে বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু সেতু পথে প্রচুর যানজট তৈরি হয়। ফলে ইউরেনিয়াম বহনকারী যানবাহন আসতে সমস্যা তৈরি হতে পারে। এ কারণেই মহাসড়কটি যানজটমুক্ত রাখতে ভোর ৫টা থেকে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হচ্ছে। ইউরেনিয়াম প্রকল্পে পৌঁছে গেলেই বাস চলাচল শুরু হবে।
এ সময় বিকল্প পথ হিসেবে পাবনা থেকে কাজিরহাট ফেরিঘাট নৌপথে আরিচা হয়ে ঢাকায় চলাচল করা যাবে। ঢাকাগামী যাত্রীরা জরুরি প্রয়োজনে যাতায়াত করতে এ রুটটি ব্যবহার করতে পারবেন।
এ ইউরেনিয়াম পরিবহনে সেনাবাহিনীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিশেষ নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন বলে জানিয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্র। ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়ে নাটোরের বনপাড়া ও পাবনার ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া হয়ে রূপপুর প্রকল্প এলাকায় পৌঁছাবে ইউরেনিয়ামের প্রথম চালান।
এদিকে, বাস চলাচল বন্ধের এ সিদ্ধান্তে পাবনা থেকে ঢাকাগামী প্রতিটি গাড়ির টিকিট বিক্রি বন্ধ রয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত না পাওয়া পর্যন্ত মালিক পক্ষ বাস চলাচল বন্ধ রাখবেন বলে জানিয়েছেন।
পাবনা জেলা মোটর মালিক গ্রুপের সভাপতি কাফি সরকার বলেন, প্রশাসনের নির্দেশে আমরা টিকিট বিক্রি বন্ধ রেখেছি। পরবর্তী নির্দেশনা পেলে দিনের যে কোনো সময় বাস চলাচল শুরু করা হবে।
রূপপুর প্রকল্পের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় রাশিয়া থেকে দেশে পৌঁছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের জন্য ফ্রেশ নিউক্লিয়ার ফুয়েল বা ইউরেনিয়ামের প্রথম চালান।
রূপপুরের প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা রোসাটমের জ্বালানি প্রস্তুতকারী কোম্পানি তেভেলের একটি প্রতিষ্ঠান নভোসিবিরস্ক কেমিক্যাল কনসেনট্রেটস প্ল্যান্ট (এনসিসিপি) রূপপুরের এই জ্বালানি উৎপাদন করছে।
আগামী ৫ অক্টোবর রূপপুর প্রকল্পে এ জ্বালানি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকল্প কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি করপোরেশনের (রোসাটম) মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ উপস্থিত থেকে এ জ্বালানি হস্তান্তর করবেন।
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দুটি ইউনিটের উৎপাদন সক্ষমতা ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট। প্রকল্পের নির্মাণকাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল ও স্পর্শকাতর এ প্রকল্প নির্ধারিত সময়ে চালু করা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

স্বত্ব: নিবন্ধনকৃত @ প্রাপ্তিপ্রসঙ্গ.কম (২০১৬-২০২৩)
Developed by- .::SHUMANBD::.