সোমবার | ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ | ১৩ ফাল্গুন, ১৪৩০

ইঁদুর-বিড়াল খেলায় হারছে স্বল্পআয়ের মানুষ

-প্রফেসর ড. মো: ফখরুল ইসলাম।
নভেম্বরের সকালে মিষ্টি রোদের ঝলকানিতে ঢাকার রাজপথের মোড়ে মোড়ে বিশাল এলাকায় ডেকারেশনের প্লাষ্টিকের চেয়ারে বসে একদল মানুষ আয়েশ করে চা খাচ্ছেন। খুশিমনে খোশগল্প করছেন আর আগামী নির্বাচনে তার এলাকায় কে কে নমিনেশন পেতে লবিং ড্যাশিং শুরু করে দিয়েছেন তার হিসেব করছেন। তারা সবাই এই সময়ের বিত্তশালী, দামী ব্যবসায়ী ও রাজনীতি করা মানুষ। তাঁদের একটু পাশেই দাঁড়িয়ে আরেকদল মানুষ তাদেরকে সতর্কতার সাথে চকচকে উর্দ্দি পরে সরকারী অস্ত্র হাতে পাহারা দিচ্ছেন।
আরেকদল মানুষ গত রাত থেকে সারা দেশের রাস্তায় সুযোগ পেলে যানবাহনে ঢিল ছুঁড়ছেন। বাসে অগ্নিসংযোগ করছেন। তাদেরকে ঠেকাতে আরেকদল বা কতিপয় নানা রংয়ের উর্দ্দি পরা মানুষ তৎপরতার সাথে দামী গাড়িতে চড়ে সাইরেন বাজিয়ে চকচকে টিয়ার গ্যাসের সেল ছুঁড়ছেন, গুলি, সাউন্ড গ্রেনেড ছুঁড়ে চারদিক অন্ধকার করে নিস্তব্ধ করে দিচ্ছেন। এর ফলে ভাল-মন্দ সবকিছুই স্থবির হয়ে গিয়ে চারদিকে নিস্তব্ধতা বিরাজ করছে। রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ। মানুষ ঘরের বাইরে বের হতে গিয়ে জীবনের ভয়ে দরজা বন্ধ করে বসে আছেন। শুধু কিছু চাকুরীজীবি যারা জীবন বাঁচানোর তাগিদে চাকুরী রক্ষা করার জন্য কেউ অতি ভোরে হেঁটে, কেউ রিক্সা-ভ্যানে চড়ে অফিসে হাজিরা দিচ্ছেন।
ডিজিটাল যুগের ছোঁয়ায় এখন আর জরুরী প্রয়োজনে বাজার যেতে হয় না, ব্যাংকে টাকা তুলতে যেতে হয় না। অনলাইন সেবা নিয়ে তারা অনেকেই ঘরে বসে অলস সময় কাটাচ্ছেন । বাচ্চাদেরকে নিরাপত্তার ভয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া থেকে বিরত রেখেছেন অভিবাবকগণ। শিক্ষকগণ অনলাইনে বসে তাদেরকে জরুরী পাঠদান করছেন। ব্যস্ত গৃহিণীদের নিকট মনে হচ্ছে- তাদেরকে করোনাকালীণ সময়ে নিয়ে গেছে এই হরতাল, অবরোধ।
কিন্তু সমস্যা বেড়ে গেছে অন্য জায়গায়। সকাল আটটার দিকে হাঁটতে হাঁটতে ক্যাম্পাস পেরিয়ে বড় রাস্তায় চলে গেলাম। রাস্তা পেরিয়ে একটি অস্থায়ী কাঁচা বাজারে ঢুঁ মারলাম। সঙ্গী আমার এক প্রতিবেশী কলিগ। তার সাথে প্রায়শ:ই একসংগে বের হয়ে থাকি। তরতাজা শাকসব্জি ও মাছ পেলে তিনি কিনে ফেলেন। আজও তার লক্ষ্য সেটাই। কিন্তু সেদিন বেলা ন’টা পেরিয়ে গেলেও দোকানে ক্রেতা নেই। পরিচিত কয়েকজন দোকানী জানাল গতকালও তেমন কোন ক্রেতা ছিল না। তাই আজ কোন কাঁচামালের অর্ডার দেয়া হয়নি।
এর পাশে বড় রাস্তা ঘেঁসে অনেগুলো হকারের দোকান। তারা বিভিন্ন ধরণের কাপড়, সেন্ডল-জুতো, ফল, তৈজষপত্র সাজিয়ে বিষন্ন মনে বসে আছেন। তাদের কথা, মানুষ ভয়ে রাস্তায় বের হচ্ছে না। তাই বেচা-বিক্রি একদম বন্ধ। আমাদের বেচা-বিক্রি বন্ধ হওয়া মানে পেটে লাথি মারা।
দোকান খুললেই পুলিশ এসে তাড়া দেয়, মালামাল তল্লাশী করে, মারপিট করে, দোকান বন্ধ করে চলে যেতে বলে। এখানে ঘন ঘন পুলিশের গাড়ি এসে টহল দেয়ায় সাধারণ মানুষ ভয়ে এদিকে আসে না। কেউ এদিকে এলেও দাঁড়াতে চায় না। রাস্তায়, ফুটপাতে মানুষ না থাকায় ক্রেতার অভাবে কপাল পুড়েছে তাদের- বলে রাগ করে জানালো আরেকজন হকার। তাদের অন্যকোন আয়ের পথ খোলা নেই। ফুটপাতে দোকান করে আয় করাটাই তাদের সম্বল। এভাবে বিক্রি বন্ধ থাকলে তাদেরকে পরিবারসহ না খেয়ে মরতে হবে।
‘হারবে না বাংলাদেশ’বলে চারদিকে শ্লোগান টাঙ্গানো হয়েছে। দৈনিক পত্রিকাগুলোতে সাড়ম্বরে বিজ্ঞাপন প্রচারিত হচ্ছে। অনলাইন ভিডিওতে ‘বাংলাদেশ হারবে না’- বলে উদ্দাম নৃত্যের দৃশ্য ভেসে আসছে সব সময়। তাহলে সেসব বিজ্ঞাপন কাদের জন্য? যারা প্রতিদিন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ক্রয় করতে গিয়ে পকেটে পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে নিজের কাছে হেরে যায় তাদের বিজ্ঞাপনটা কেমন হবে?
হেরে গেছে নিম্ন আয়ের মানুষ। অথচ, যারা কোনদিন কোনকিছুতেই হারে না তারা হরতাল অবরোধেও হারছেনা। তারা কোনদিন হারবেও না। তাদেরকে সব ধরণের নিরাপত্তা দেবে দেশের সব সেক্টরের নিরাপত্তাকর্মীরা। ওদেরকে সাথে নিয়ে অবরোধের সময় রাজপথের মোড়ে মোড়ে বসে তারা চা-বিস্কুট অথবা দামী রেস্তোঁরায় কফি-স্যুপ খেতেই থাকবে! আর হেরে যাবে খেটে খাওয়া দেশের সিংহভাগ মানুষ। তারা তৈরী পোশাক কারখানার সামনের রাস্তায় সামান্য মজুরীবৃদ্ধির দাবীতে নিরাপত্তাবাহিনীর সাথে ক্রমাগত ইট-পাটকেল ছুঁড়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করতেই থাকবে। এটাই কি তাদের নিয়তি?
অন্যদিকে মন্ত্রী মহোদয়গণ সেমিনারে বসে আয়েসী ভঙ্গিতে বক্তব্য দেবেন দেশের অনেক উন্নতি হয়েছে। একজন মন্ত্রী সেদিন আবেগপূর্ণ বক্তব্য দিতে গিয়ে আসল গোমর ফাঁস করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের চার কোটি মানুষের ক্রয়ক্ষমতা ইউরোপের সমান। এই চার কোটি মানুষ দাম দিয়ে ভাল জিনিষপত্র কিনতে পারে। সম্প্রতি ১৮তম জাতীয় ফার্ণিচার মেলা উদ্বোধনের সময় বাণিজ্যমন্ত্রী এমনটি দাবী করে বক্তব্য দিয়েছেন। আমাদের দেশের মানুষের মাথাপিছু কামাই ২৮০০ ডলার।
তবে এক হিসেব অনুযায়ী আমাদের দেশের মোট জনসংখ্যা ১৮ কোটি। তন্মধ্যে চার কোটি মানুষ ভালমানের ফার্ণিচার ক্রয় করার জন্য ক্ষমতাবান হয়েছে জেনে বেশ ভাল লাগলেও বাকী চৌদ্দ কোটি মানুষেরা কিভাবে তাদের প্রয়োজনীয় ফার্ণিচার ক্রয় করতে পারবে সে বিষয়ে কিছু বলেননি।
এমন সময় তিনি এই বক্তব্য দিয়েছেন যখন দেশের সাধারণ মানুষ মৌলিক চাহিদা পূরণের নিমিত্তে অতি প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কিনতে বাজারে গিয়ে হতাশ হয়ে শূণ্য হাতে বাড়িতে ফিরে আসছেন। প্রতিদিন এই ধরণের কষ্টকর সংবাদ গণমাধ্যমে প্রচারিত হচ্ছে।
শুধু ঢাকার কয়েকটি কাঁচাবাজারে কর্র্তপক্ষের কিছু কর্মী বাজারে গিয়ে লোকদেখানো খবরদারী করে ক্ষান্ত দিয়েছেন। কোন পণ্যে দাম কমানোর কোন লক্ষণ জানা যায়নি। ক্যামেরার আগমন ঘটলে কোন কোন বাজারে কিছুটা দাম কমানোর কথা প্রকাশ করা হচ্ছে। কিন্তু সরকারী লোকজন আড়ালে চলে গেলে আবারো বাজারের দ্রব্যমূল্য আগের মতো অথবা আগের চেয়ে আরো বেশী দাম চাওয়া হচ্ছে। এতে চারকোটি বিত্তবানদের কোনরুপ অসুবিধা হচ্ছে না। কিন্তু নিম্নআয়ের বা দরিদ্র মানুষের করুণদশা শুরু হয়েছে। নিম্নআয়ের মানুষেরা নিত্যপণ্য ক্রয়ের ক্ষমতা হারিয়ে অল্পখেয়ে অথবা না খেয়ে নিজের সাথে প্রবঞ্চনা করে দিনাতিপাত করতে বাধ্য হচ্ছেন।
অথচ, দেশের সবদামী খাদ্যপণ্যই যেন বিত্তবানদের ভোগের জন্য উধাও হয়ে বড় ছোট সবধরণের হিমঘরে ঢুকে পড়ে। বাজারের কৃত্রিম সংকট বিত্তশালীদের রসনা পূজার জন্য সৃষ্ট এক আজিব আজাব বা গজব হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে! বিশ দিনের ইলিশ ধরা বিরতি শেষে এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও দেশের বাজার ইলিশশুণ্য। অথচ, ভাইফোঁটার আগে কোলকাতার বাজারে বাংলাদেশী তাজা ইলিশ বিক্রি হচ্ছে বলে সংবাদ বেরিয়েছে। বিদেশে ইলিশ রপ্তানী বন্ধ থাকলেও এটা কি করে সম্ভব হচ্ছে?
দ্রব্যমূল্য সন্ত্রাসের এই আজিব আজাবের শিকার দরিদ্র ও নিম্নআয়ের কোটি কোটি মানুষ! এর দায়ভার কে নেবে? এই পরিবেশে তাদের পক্ষে কথা বলারও কেউ নেই। অজানা কারণে প্রচারমাধ্যমে তাদের কথা তেমনভাবে ফুটে উঠে না। তার ওপর কর্তৃপক্ষের মুখ থেকে এমন বক্তব্য শুধু হাস্যকর নয়- বড়ই নিষ্ঠুর ও মর্মান্তিক!
বর্তমান দ্রব্যমুল্য সন্ত্রাসের বাজারে ‘রাজায় রাজায় যুদ্ধ, উলুখাগড়ার প্রাণ যায়’অথবা ‘রাজার দোষে রাজ্য নষ্ট প্রজা কষ্ট পায়’এসব প্রবাদবাক্য বাংলাদেশের কপট রাজনীতির মারপ্যাঁচে এখন দারুণ সাঁচাকথা হিসেবে প্রতীয়মান হচ্ছে। সামাজিক ন্যায়বিচার ও মানবিক সহমর্মিতা বিষয়গুলো স্বল্পআয়ধারী কায়ক্লেশে বেঁচে থাকা মানুষগুলোর মনে নিদারুণ প্রবঞ্চনা হিসেবে দেখা দিয়ে যে কষ্টকর পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে তা কি কালো কাঁচের ঘেরে চলাফেরা করা মানবিক নেতাদের নজর ভেদ করার সুযোগ পায়? নাকি কালো বিড়াল তাদেরকেও কব্জা করে রেখেছে তা মোটেও বোধগম্য নয়।
ডিজিটাল যুগের ছোঁয়ায় ব্যাপক আয়বৈষম্য ও ক্রয়ক্ষমতার ব্যবধান সৃষ্টি হওয়ায় মানুষের প্রতি মানুষের মমত্ববোধ কমে গেছে। দরিদ্র মানুষের মরণদশার কথা কেউ আমলে নিচ্ছে না। দেশের নির্বাচন নিয়ে বড় বড় দলগুলো ইঁদুর-বিড়াল খেলা আরো বেশীদিন চলতে থাকলে এবং এভাবে ক্রমাগত কেউ কারো মতামতকে শ্রদ্ধা না কলে বাহাদুরি করতে থাকলে তাদের আদৌ কোন কষ্ট হবে না। কিন্তু অবর্ণনীয় কষ্ট পেতে থাকবে ক্রয়ক্ষমতা হারানো দেশের ৭০-৭৫ ভাগ মানুষ। এভাবে ক্রমাগত অন্যায়, সামাজিক অবিচার, অভাব, অপুষ্টির শিকার হয়ে তাহলে তারা কি ধুঁকে ধুঁকে নি:শেষ যাবে? তারাও কোনভাবে হারতে চায় না।
* প্রফেসর ড. মো: ফখরুল ইসলাম: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডীন। E-mail: [email protected]

স্বত্ব: নিবন্ধনকৃত @ প্রাপ্তিপ্রসঙ্গ.কম (২০১৬-২০২৩)
Developed by- .::SHUMANBD::.