বৃহস্পতিবার | ২৩ মে, ২০২৪ | ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১

সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান ও অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নাটোরের লালপুরে জাল ও জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান ও অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একজন প্রতারক গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। শুক্রবার তাকে আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল ২০২৪) সন্ধ্যায় উপজেলার বিলমাড়িয়া ইউনিয়নের মোহরকয়া (ভাঙ্গাপাড়া) এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ওই গ্রামের নুর মোহাম্মদ মালিথার ছেলে মো. মিরন ইসলাম মোস্তাককে (৩৪) গ্রেপ্তার করা হয়।
সিপিসি-২, নাটোর ক্যাম্প, র‌্যাব-৫, রাজশাহী সূত্রে জানা যায়, একটি অপারেশন দল বৃহস্পতিাবার (১৮ এপ্রিল ২০২৪) তারিখে উপজেলার মোহরকয়া গ্রামের মৃত রাহাত আলী মন্ডলের ছেলে মো. শফিকুল ইসলাম ওরফে বুদু মন্ডলের (৪৫) অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫, রাজশাহীর একটি আভিযানিক দল উপজেলার মোহরকয়া ভাঙ্গাপাড়া এলাকায় সন্ধ্যায় অভিযান পরিচালনা করে মো. মিরন ইসলাম মোস্তাককে (৩৪) গ্রেপ্তার করে। এ সময় ভূয়া নিয়োগপত্র ও ষ্ট্যাম্প পেপার উদ্ধার পূর্বক জব্দ করা হয়।
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তারকৃত মো. মিরন ইসলাম মোস্তাক কৌশলে চাকুরী প্রত্যাশী উপরোক্ত ভূক্তভোগীর ছেলেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে চাকুরিতে নিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে ১০ লাখ টাকা দাবী করেন। সরল বিশ^াসে ভূক্তভোগী গত বছর ৬ জুলাই ১০০ টাকার নন জুডিসিয়াল ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নগদ ৩ লাখ টাকা মিরন ইসলামকে দেন। পরবর্তীতে ২৫ জুলাই আরও ২ লাখ টাকা এবং ২৯ জুলাই ২০ হাজার টাকা প্রদান করেন। অবশিষ্ট ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা জন্য ভূক্তভোগীর ছেলের নামীয় উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড, লালপুর শাখা, নাটোর এর সঞ্চয়ী হিসাব নং-১৯২০৩ চেক বইয়ের তিনটি ফাকা চেক প্রদান করলে মো. মিরন ইসলাম মোস্তাককে (৩৪) ভূক্তভোগীর ছেলের নামে একটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক পদে ভর্তির নিয়োগপত্র প্রদান করেন। ওই নিয়োগ পত্রটি নিয়ে ছেলেসহ ৩১ জুলাই চট্টগ্রামের বায়েজিদ ক্যান্টনমেন্টের সামনে গেলে মো. মিরন ইসলাম মোস্তাক (৩৪) ভূক্তভোগীকে ফোন দিয়ে নিয়োগপত্রটি কাউকে দেখাতে নিষেধ করে বলেন ‘আমার লোক আপনার কাছে যাবে’। এভাবে সেখানে তিন দিন অবস্থান করার পর ফোন করে বলেন, বাড়িতে আসেন আপনার টাকা ফেরত দেব। ভূক্তভোগীর মনে সন্দেহ হলে তখন তিনি নিয়োগপত্রটি সেখানে একজন সেনাবাহিনীর সদস্যকে দেখালে সেনাবাহিনীর সদস্য জানান, নিয়োগপত্রটি সঠিক নয় বা ভূয়া।
র‌্যাব জানায়, গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তিনি চাকুরী প্রত্যাশী যুবকদের চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে অর্থের বিনিময়ে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন পদে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে কৌশলে প্রতারণার মাধমে কম্পিউটারে ইডিটিং করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিরেকে সেনাবাহিনীর মনোগ্রামসহ সিল মোহর ও স্বাক্ষর ব্যবহার করে চাকুরীর ভূয়া নিয়োগপত্র তৈরী পূর্বক ভূয়া নিয়োগপত্র চাকুরী প্রত্যাশীগণের নিকট প্রদান করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছিম আহম্মেদ বলেন, অভিযোগকারী বাদী হয়ে লালপুর থানায় গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে প্রতারনা মামলা দায়ের করেছেন। শুক্রবার তাকে আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

স্বত্ব: নিবন্ধনকৃত @ প্রাপ্তিপ্রসঙ্গ.কম (২০১৬-২০২৩)
Developed by- .::SHUMANBD::.